অষ্টম (৮ম) শ্রেণি বাংলা ৬ষ্ঠ সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট প্রশ্ন ও সমাধান

শিরোনামঃ এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।

আরো পড়ুনঃ 

২য় সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১  সকল শ্রেণি সকল বিষয়

আরো পড়ুনঃ

৮ম শ্রেণি বাংলা ৬ষ্ঠ সপ্তাহের প্রশ্ন দেখুন।

 

বাড়ির কাজ : (নমুনা প্রশ্ন)

প্রশ্ন: ০১ সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীনতার স্থপতি, আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতা যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ার জন্য যে সব যুক্তি তুলে ধরেছেন সেগুলো সাজিয়ে লিখ।


অ্যাসাইনমেন্ট শুরু


উপস্থাপনা:স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর তাঁর জীবনের অধিকাংশ সময় বাংলাদেশের মানুষও তাদের কল্যানের জন্য ব্যয় করেছেন।বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য সমগ্র বাংলাদেশকে সংঘবদ্ধ করতে তাঁর ভূমিকা ছিল অপরিসীম ।প্রত্যেক বাংলাদেশীর জান্য জাতির পিতা জীবন সম্পর্কে জ্ঞানার্জন করা অপরিহার্য। ঐতিহাসিক রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধু তাঁর শ্রেষ্ঠ ভাষণ দিয়েছিলেন নানা রকম পরিস্থিতি মোকাবেলা করে তিনি তো থামেননি ১০ লক্ষাধিক লোকের সামনে পাকিস্তানি দস্যুদের কামান-বন্দুক মেশিনগানের হুমকির মুখে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ দিন ঘোষণা করেন এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।

যেসব যুক্তি তুলে ধরেছেনসর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী স্বাধীনতার স্থপতি, আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতা যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ার জন্য যেসব যুক্তি তুলে ধরেছেন তার মধ্যে অন্যতম হলো: সামগ্রিক পরিস্থিতির পর্যালোচনা, নিজ ভুমিকা ও অবস্থান ব্যাখ্যা,  পশ্চিম পাকিস্তানি রাজনীতির ভূমিকার উপর আলোকপাত, সামরিক আইন প্রত্যাহারের আহ্বান, অত্যাচার ও সামরিক বাহিনীর হুমকি; দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত পূর্ব-পাকিস্তানের হরতাল দেওয়ার সিদ্ধান্ত ঘোষণা এবং নিগ্রহ আক্রমণ প্রতিরোধের আহ্বান, মার্চের ভাষণে বঙ্গবন্ধু ৪ দফা দাবি তুলে ধরেন। যথা:-

  • ১. প্রথমে মার্শাল ল উইথড্র করতে হবে।
  • ২. সমস্ত সামরিক বাহিনীর লোকদের ব্যারাকে ফেরত যেতে হবে।
  • ৩. যেভাবে হত্যা করা হয়েছে তার তদন্ত করতে হবে।আর
  • ৪. জনগণের প্রতিনিধির কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে।

ভূমিকা ও নিজ অবস্থান ব্যাখ্যাস্বাধীন বাংলাদেশের রাজনৈতিক আন্দোলনে তরুণ সমাজকে এঁক্যবদ্ধ করতে ১৯৪৮ সালে ৪ঠা জানুয়ারি শেখ মুজিব গঠন করলেন ছাত্রলীগ নামের এক অপরাজেয় ছাত্র সংগঠন। ১৯৪৯ সালের ২৩ শে জুন আওয়ামীলীগ কারাগারে বন্দি২৯ বছরের শেখ মুজিবকে সংগঠনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দায়িত্ব দেয়া হয়। এরপর যত সময় গিয়েছে শেখ মুজিব হয়ে উঠেছে আওয়ামী লীগের প্রাণ। প্রাণপুরুষ ১৯৫৬ সালে কোয়ালিশন সরকারের শিল্প বাণিজ্য দুর্নীতি দমন ও ভিলেজ দপ্তরের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। বাঙালি জাতির বৃহত্তর স্বার্থে আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করার উদ্দেশ্যে ১৯৫৭ সালে মন্ত্রির দায়ীত্ব ছেড়ে দেন শেখ মুজিব।

সামরিক আইন প্রত্যাহারের আহবানপাকিস্তানের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ও প্রধান সামরিক আইন প্রশাসক অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করে দেন। এর প্রতিবাদে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মার্চ অসহযোগ আন্দলোনের ডাক দেন। ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধুর সেই ঐতিহাসিক ভাষণে জনগণকে মুক্তি ও স্বাধীনতা অর্জনের জন্য সর্বাত্মক যুদ্ধের প্রস্তুতি নেয়ার আহ্বান জানান।

নির্বাচন বন্ধের হুমকি : বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ এক ধরনের অন্যায়.আবিচারের বিরুদ্ধে বর্জ্র কণ্ঠে ঘোষণাপত্র। এই অন্যায় অবিচার বন্ধ করার জন্য যা কেবল একাত্তরেই নয় বর্তমান সময় ও আমাদের অনুপ্রাণিত উজ্জীবিত করেছেন আমাদের এগিয়ে যাওয়ার পথ করে দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের নির্বাচনী ভাষণ। বঙ্গবন্ধুর আগমন আমাদের এদেশে এমন এক সময় হয়েছিল যখন আসলেই আমাদের একজন নেতার প্রয়োজন ছিলো। তার ঐ জ্বালাময়ি ভাষণটা ছিলো আমাদের মুক্তির পথের দিশারী।

উপসংহারঃ আমৃত্যু বাঙালি তথা বাংলাদেশের ভবিষৎ এর কথা চিন্তা করে যাওয়া মুজিবুর রহমানের বাংলাদেশ তার শাসনকালে আদৌ সোনার বাংলা হয়ে উঠতে পেরেছিল কিনা তা বিচার্য নয়। বিচার্য এই যে সারা জীবন তিনি রাজনৈতিকভাবে যা কাজ করেছেন তা তার দেশ তথা দেশবাসীর সামগ্রিক উন্নয়নের উদ্দেশ্যেই। শাসনকালে গৃহীত নানা নীতির জন্য বিভিন্ন মহলে বঙ্গবন্ধু সমালোচিত হলেও আমাদের মনে রাখা দরকার সেই নীতিগুলি গৃহীত হয়েছিল বৃহত্তর জাতীয় সার্থেই।

আরো দেখুন:

সকল অ্যাসাইনমেন্টের জন্য নিচের ফেজবুক পেজটিতে লাইক দিয়ে রাখুন।


অষ্টম (৮ম) শ্রেণি বাংলা ৬ষ্ঠ সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট প্রশ্ন ও সমাধান class 8 bangla 6th week assignment 2




Post a Comment

নবীনতর পূর্বতন